মনোবিজ্ঞান
Trending

ভিক্টিম কার্ড কি? কেন একজন ‘ভিক্টিম কার্ড (Victim Card)’ খেলে থাকেন?

Disclaimer: The article provided is a commentary on the concept of playing the “victim card” and discusses the psychological and social aspects of individuals who may portray themselves as victims in various situations. The views expressed in the article are based on the author’s perspective and are not intended to be a generalization of all individuals who may find themselves in a victimized position. The term “victim card” as used in the article refers to a metaphorical card that some individuals may ‘play’ to gain sympathy or avoid responsibility. It is important to approach the topic with sensitivity and understanding, recognizing that each individual’s circumstances are unique. This disclaimer serves to clarify that the article’s content is meant for informational purposes and should not be taken as professional psychological advice.

আমি একজন ভুক্তভোগী বা অন্যায় ভাবে আমার সাথে কিছু করা হচ্ছে যখন এই ভূমিকায় নিজেকে কেউ প্রমাণ করার জন্য যে তাসের কার্ড (যে কার্ড তাসে নেই) বেছে নেয় তাকে আমি ‘ভিক্টিম কার্ড (Victim Card) প্লেয়ার’ বলবো। মূলত, এই ধরণের মানুষগুলো ক্রমাগত নিজেকে দরিদ্র, অসহায়, দূর্বল এবং আপেক্ষিক ভাবে কম বুদ্ধি সম্পন্ন বা মেধাশূন্য হয়েও বলবেন, “মেধা থাকা সত্ত্বেও হেরে গেলাম।”

সত্যি বলতে আমাদের চারপাশে এই ধরণের মানুষের অভাব নেই। কেউ কেউ বেশ সুক্ষ্ম অভিনেতার পরিচয় দিয়ে থাকেন তাদের ক্ষেত্রে এটি সনাক্ত করা আরো কঠিন। সুতরাং প্রকৃত অর্থে কে ভুক্তভোগী এবং কে ভিক্টিম কার্ড খেলছেন এদের মধ্যে পার্থক্য করা বেশ শক্ত। অনেক ক্ষেত্রে অসম্ভব প্রায় বিশেষ করে যাদের অভিনয় টম হ্যাঙ্কস কেও পিছিয়ে রাখে।

কেন একজন ‘ভিক্টিম কার্ড’ খেলে থাকেন?

প্রথমত, ব্যক্তি তার দিকে অন্যদের আগ্রহ বা দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য এমনটি করতে পারেন। কারণ, খুব সম্ভবত আমরা কম বেশি সবাই এমন কিছু পরিবার থেকে বড় হয়েছি যারা আমাদেরকে সবসময় বা প্রতিনিয়ত তাদের ব্যর্থতার জন্য অন্যদের দোষ দিয়ে গেছেন।

ফলে অচেতন মনে এই ভঙ্গিমার একটি ছাপ থেকে যায় এবং পরবর্তি সময়ে যখন আমরা নিজের ব্যর্থতাকে আর অন্য কোন রাস্তায় ঢাকতে পারি না তখন এই কার্ড ছুঁড়ে দেই পরিবার/সমাজ/রাষ্ট্রের প্রতি। এমনকি খুব গুরুত্বপূর্ন বা সেন্সিটিভ সম্পর্কগুলোতেও এমনটি ঘটে।

- Advertisement -

ধরুন, এক সন্ধ্যায় দুই বন্ধু এক রেস্টুরেন্টে খেতে বসেছে। একজন তার অবস্থান নিয়ে সন্তুষ্ট অন্যদিকে আরেকজন তার অবস্থান নিয়ে সন্তুষ্ট হওয়া সত্ত্বেও মুখটা ভার করে আছে ফলে রেজাল্ট আসলে রেস্টুরেন্টের সব বিল প্রথম বন্ধু দিয়ে দেবে।

অথবা ধরুন, সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের হাত কেটে আত্মহত্যার কেউ হুমকি দিতে পারে। সেটা কিন্তু প্রেমিক/প্রেমিকা উভয়ের ক্ষেত্রেই এমন ঘটতে পারে। আবার এটাও মনে রাখতে হবে, উপরোক্ত দুই ঘটনা সত্য-ও হতে পারে।

প্রসঙ্গত, এটি এমন এক ধরণের কূট-কৌশল যে এটা নিয়ে খুল্লাম খুল্লা আলোচনা কতটুকু উচিত জানিনা। কিন্তু প্রয়োজন আছে বলে মনে করছি।

দ্বিতীয়ত, কারো কারো ‘Victim Syndrome Or, A Victim Complex’ নামে মানসিক রোগ থেকে থাকে। ফলে এই ব্যক্তি রয়্যালটি (আক্ষরিক অর্থে) তো দূর প্রতিনিয়ত এমন এক স্বভাব দেখাবে যে আপনার মনে হতে পারে পৃথিবীতে যত দরিদ্র, অসহায়, দূর্বল ও আপেক্ষিক ভাবে কম যোগ্যতা সম্পন্ন ব্যক্তি আছেন ইনি হচ্ছেন সেই ব্যক্তি।

এই ধরণের মানুষ সারাদিন বা প্রতিনিয়ত নিজেকে এভাবেই সবার সামনে পেশ করবে। উল্লেখ্য, এমন মানুষ বাস্তবে আছে, তাই নির্বাচনে ভুল হলে আমাদের জাজমেন্টাল গালি দেওয়া স্বাভাবিক। কিন্তু ভণিতা করা ঐ মানুষ যে কার্ড খেলছেন আপনার সাথে সেটাই ‘ভিক্টিম কার্ড’।

Being a Victim vs Self Pity vs Victim Mentality নিয়ে আরো কিছু কথা

আমি কেন সর্বদা ভিক্টিম প্লেয়ার হিসেবে নিজেকে বেছে নেব? কারণ, ক্রমাগত ভিক্টিম কার্ড প্লেয়িং অভিনয়ে আসলে অনেক সুবিধা থাকতে পারে। যেমন ধরুন,

১। আপনার কোনও জিনিসের দায়-দায়িত্ব থাকবে না।

২। আপনার কাছে অভিযোগ করার এবং মনোযোগ পাওয়ার ‘অধিকার’ থাকবে।

৩। অন্যরা আপনার জন্য দুঃখিত অনুভব করবেন এবং আপনার প্রতি মনোযোগী হবেন।

৪। লোকের আপনাকে সমালোচনা বা বিরক্ত করার সম্ভাবনা কম থাকবে।

- Advertisement -

৫। অন্যরা আপনাকে সাহায্য করতে বাধ্য হয় এবং আপনি যা চান তা করতে বাধ্য হন।

৬। আপনার সাথে ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলি এবং সেসব যেহেতু আকর্ষণীয় বলে মনে হচ্ছে বা হবে তাই আপনি আপনার এই গল্পগুলি বলার জন্য ভালো শ্রোতা পাবেন।

৭। অন্যদের অনুভূতি দেখে বিরক্ত হওয়ার কোনও সময় নেই আপনার হাতে কারণ আপনার জীবনে যেহেতু এত নাটক ঘটেছে।

৮। আপনি দুঃখিত এবং বিচলিত হওয়ার কারণে খুব ব্যস্ত থাকায় আপনি কখনও রাগ বোধ করতে পারবেন না।

ক্রমাগত ভিক্টিম অভিনয়ে আসলে অনেক সুবিধা থাকতে পারে। এগুলি আপনি যদি উপরের বিবৃতিগুলি দেখেন তবে ইতোমধ্যে আপনি ভিক্টিম হওয়ার আসল উপকারগুলি কী হতে পারে তার প্যাটার্নটি বুঝতে পেরেছেন। এসব হলো,

- Advertisement -

(ক) মনোযোগ আকর্ষণ

(খ) মূল্যবান বোধ করা

(গ) শক্তি

যেহেতু আপনি ক্ষতিগ্রস্থদের ভূমিকায় অভিনয়ে পরিপক্ক তাই বাকিরা আপনার জন্য ‘সরি’ অনুভব করবে। আর এখানেই ট্রিক লুকিয়ে আছে উক্ত ব্যক্তি কে ম্যানিপুলেট করার। ছোট থেকে বড় সব কাজে তখন সেই ব্যক্তিগুলো সাহায্যে লেগে পড়বে। কারণ আপনি দরিদ্র, অসহায় ও দূর্বল। তাই তারা আপনার জন্য সিগারেট খরচ থেকে শুরু করে চাকুরী পর্যন্ত জোগান দিয়ে দিতে পারেন।

অবশ্য সাইকোলজির এই খেলাটি খেলতে পারেন বা এটাও ন্যায় যখন সেটা আপেক্ষিক ভাবে খারাপ কিছুর চেয়ে ভালো। আর অন্যায় হলো, মানুষের অনুভূতি নিয়ে খেলা করা। এজন্য সমাজে অরাজকতা বাড়বে এবং একদিন ঠিকই আপনার মুখোশ খুলে যাবে। আর নগ্ন সেই চেহারা দেখতে হবে বিভৎস।

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

মেহেদি হাসান

পরিচয়: আমি মোঃ মেহেদি হাসান, কলম নামে মি. বিকেল। আমি একজন বহুমুখী ব্যক্তি, বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমার পেশাগত জীবন বিস্তৃত। লেখক, অভিনেতা, সমাজকর্মী, রেডিও জকি, ওয়েব ডেভেলপার, ওয়েব ডিজাইনার, সম্পাদক, উপস্থাপক, রক্তদাতা, অডিও ও ভিডিও সম্পাদক, ছবি সম্পাদক, ইউটিউবার এবং নাট্য পরিচালক হিসেবে কাজ করি। মাইক্রোসফটের একজন ডেভেলপার এবং অ্যাপ ডেভেলপারও আমি। More »

Related Articles

Leave a Reply

- Advertisement -
Back to top button

Adblock Detected

🔔 A Friendly Reminder

Looks like you're using an adblocker. Our content is supported by ads, which help us keep it free for you.

Please consider disabling your adblocker for our site and hit refresh. Your support means a lot to us!

Thank you for being a valued reader. 🌟