মনোবিজ্ঞান

নিয়তি: আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে নাকি আমাদের হাতের মুঠোয়?

নিয়তির খেলায় আমাদের ভূমিকা: ১০ টি ইফেক্ট যা আমাদের জীবন নিয়ন্ত্রণ করে

- Advertisement -

আমরা আমাদের নিয়ত পরিবর্তন করতে পারি, কিন্তু নিয়তি পরিবর্তন করতে পারি না। নিয়তি বা ভাগ্যলিপি বা তকদীর পরিবর্তনযোগ্য নয়। ছোটবেলায় আমাদের নিয়ত কী ছিল? তার কতটুকু বাস্তবে সম্পাদিত হয়েছে? এই প্রশ্নগুলো নিজেকে বারবার করলে, নিয়তির দর্শনে শুধু ঘুরপাক খাওয়া ছাড়া আর কিছুই থাকবে না। দর্শনে ‘নিয়তি (Destiny)’ এখন এক ধরনের ‘Enigma (ধাঁধাঁ)’ -তে পরিণত হয়েছে। শুধু তাই নয়, ছোটবেলার নিয়তের সাথে বর্তমানে আপনার নিয়তের মিল খুব বেশি খুঁজে পাবেন না। কিন্তু নিয়তি অপরিহার্য এবং একটা না একটা সময় আমাদেরকে নিয়তির সামনে পড়তে হবেই।

এই প্রবন্ধে আমি মোট ১০টি ইফেক্ট নিয়ে আলোচনা করবো, যেগুলো প্রায় সরাসরি আমাদের নিয়তি নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এই ইফেক্টগুলো হলো বাটারফ্লাই ইফেক্ট, স্নোবল ইফেক্ট, ডমিনো ইফেক্ট, হ্যালো ইফেক্ট, ম্যাথিউ ইফেক্ট, রিপল ইফেক্ট, প্লেসিবো প্রভাব, পিগম্যালিয়ন প্রভাব, দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট, ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্ট।

প্রতিটি ইফেক্ট আমাদের জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে কীভাবে প্রভাব ফেলে, তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো। শুরু করার আগে, আমার একটি উক্তি মাথায় রাখতে পারেন, “আমরা নিজেকে যে জন্য তৈরি করি, বা যা হতে চাই, বা করতে চাই, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আমরা সেটা পাই না। মূলত বিশ্বব্রহ্মাণ্ড ঠিক করে দেয় আপনি কীসের জন্য প্রস্তুত এবং আপনাকে কি কাজ দেওয়া উচিত।” মানে হলো, জীবনের পথে আমরা যতই পরিকল্পনা করি না কেন, অনেক সময় অপ্রত্যাশিত ঘটনাগুলোই আমাদের নিয়তির দিক নির্ধারণ করে।

১. Butterfly Effect (বাটারফ্লাই ইফেক্ট)

বাটারফ্লাই ইফেক্ট বা প্রজাপতি ইফেক্ট হলো একটি ধারণা যা বুঝায় যে, খুব ছোট একটি ঘটনা বা পরিবর্তন অনেক বড় একটি প্রভাব বা পরিণতি নিয়ে আসতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, কোনো একটি অঞ্চলে একটি প্রজাপতির ডানা ঝাপটানো পৃথিবীর অন্য কোনো অঞ্চলে টর্ণেডো ঘটাতে পারে। এই ইফেক্ট বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক বিভাগে পড়ানো হয় এবং এর গুরুত্ব অপরিসীম।

নিয়তির ক্ষেত্রে, এই ইফেক্ট দেখায় যে, আমাদের ছোট ছোট কর্মকাণ্ড বা সিদ্ধান্ত কীভাবে আমাদের জীবনের বড় বড় ঘটনাগুলোকে প্রভাবিত করে। যেমন, মি. ক যদি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষে মিস. খ এর রূপের প্রশংসা করেন এবং তা যদি মন থেকে হয়, তাহলে সেই ছোট ঘটনা ভবিষ্যতে মিস. খ এর মনে একটি গভীর ছাপ ফেলতে পারে এবং সম্ভাব্যভাবে তাদের মধ্যে একটি প্রেমের সম্পর্কের সূচনা হতে পারে।

- Advertisement -

২. Snowball Effect (স্নোবল ইফেক্ট)

স্নোবল ইফেক্ট বা বরফের গোলা ইফেক্ট এমন একটি ধারণা যা বুঝায় যে, একটি ছোট শুরু ক্রমশ বড় হয়ে উঠতে পারে এবং অবশেষে একটি বিশাল প্রভাব তৈরি করতে পারে। যেমন, একটি পাহাড়ের চূড়া থেকে একটি ছোট তুষারের বল গড়িয়ে নিচে নামতে নামতে একটি বিশাল তুষারের বলে পরিণত হয়। এই ইফেক্টটি অনেক বড় বড় কোম্পানি যেমন Amazon, Alibaba, Facebook এর বৃদ্ধির সাথে তুলনা করা হয়। একটি ছোট শুরু থেকে এই কোম্পানিগুলো ক্রমশ বাজারে তাদের প্রভাব বাড়িয়ে চলেছে।

ব্যক্তিগত জীবনে, আপনি যদি নিজের শরীরের উপর কাজ করতে চান, যেমন ওজন কমানো বা ফিটনেস বাড়ানো, তাহলে একদিনের পরিবর্তন নয় বরং নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমে ধীরে ধীরে বড় পরিবর্তন আনা সম্ভব। একইভাবে, সামাজিক চাপ বা সমালোচনার মুখে পড়া এবং তার প্রতিক্রিয়ায় নিজেকে পরিবর্তন করা, বা নিয়মিত সঞ্চয় করে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জন করা—এই সবই স্নোবল ইফেক্টের উদাহরণ। এই ইফেক্ট দেখায় যে, ছোট ছোট পদক্ষেপ কীভাবে বড় বড় ফলাফলের দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং আমাদের নিয়তির গতিপথ নির্ধারণ করতে পারে।

৩. Domino Effect (ডমিনো ইফেক্ট)

ডমিনো ইফেক্ট হলো একটি ঘটনা যা একটি শৃঙ্খলাবদ্ধ প্রভাবের সৃষ্টি করে, যেখানে প্রথম ঘটনাটি পরবর্তী ঘটনাগুলোকে একে একে সক্রিয় করে। এটি তাসের ঘর বা ডমিনো পাথরের সারির মতো, যেখানে একটি পাথর ফেলে দিলে পরবর্তী সবগুলো পাথর একে একে পড়ে যায়।

এই ইফেক্ট আমাদের জীবনের নানান দিকে প্রযোজ্য, যেমন একটি ছোট সিদ্ধান্ত বা কর্ম পরবর্তী বড় পরিবর্তন বা ঘটনাগুলোকে ট্রিগার করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, সিনেমা বা সিরিজে দেখা যায় যে, একটি ছোট ঘটনা পুরো কাহিনীর গতিপথ পরিবর্তন করে দেয়। বাস্তব জীবনে, একটি খারাপ সিদ্ধান্ত বা কর্ম আপনার জীবনের বিভিন্ন দিককে প্রভাবিত করতে পারে, যেমন একটি সম্পর্কের ভাঙ্গন অন্যান্য সম্পর্কগুলোতে প্রভাব ফেলতে পারে। এভাবেই আমাদের নিয়তি নির্ধারণ হয়।

৪. Halo Effect (হ্যালো ইফেক্ট)

হ্যালো ইফেক্ট হলো এক ধরনের জ্ঞানীয় পক্ষপাত বা ‘Cognitive Bias’ যা আমাদের মূল্যায়ন ও সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রক্রিয়ায় প্রভাব ফেলে। এই পক্ষপাত হলো যখন আমরা কোনো ব্যক্তি বা বিষয়ের একটি বৈশিষ্ট্য থেকে তার অন্যান্য বৈশিষ্ট্য বা সামগ্রিক চরিত্রের উপর একটি সাধারণীকরণ করি।

যেমন, যদি আমরা কোনো ব্যক্তিকে সুদর্শন বা আকর্ষণীয় মনে করি, তাহলে আমরা অবচেতনভাবে তাকে ভালো, বুদ্ধিমান, বা সদাচারী হিসেবেও মূল্যায়ন করতে পারি। এই পক্ষপাত আমাদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রক্রিয়ায় প্রভাব ফেলে, যেমন ‘ক’ দল সমর্থন করি এবং ‘ক’ দলের সব কাজকে ঠিক মনে করি। এই ধরনের সিলেক্টিভ শ্রবণ, দর্শন, কথা বলা, এবং সিদ্ধান্ত নেওয়া আমাদের নিয়তি নির্ধারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

৫. ম্যাথিউ ইফেক্ট (Matthew Effect)

ম্যাথিউ ইফেক্ট হলো একটি সামাজিক ও অর্থনৈতিক পর্যবেক্ষণ, যা বলে যে ধনীরা আরও ধনী হয় এবং গরীবরা আরও গরীব হয়। এই ইফেক্টের মূল ধারণা হলো, সম্পদ বা সুযোগের প্রারম্ভিক অধিকার ভবিষ্যতে আরও বেশি সম্পদ বা সুযোগ অর্জনে সহায়ক হয়। ধনী ব্যক্তিরা সামাজিক স্বীকৃতি, প্রশংসা এবং সম্মান পায়, এবং তাদের অনেক সুযোগ-সুবিধা প্রাপ্তি ঘটে।

উদাহরণস্বরূপ, বাংলাদেশের বিসিএস (বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস) চাকরি অত্যন্ত আকাঙ্ক্ষিত। একজন ধনীর ছেলে যদি বিসিএস চাকরি পায়, তাহলে তার সম্পর্কে পত্রিকায় আকর্ষণীয় শিরোনাম প্রকাশিত হতে পারে। খুব সহজেই অনুমেয় হয় যে, এই ইফেক্ট ধনী এবং গরীবের মধ্যে বৈষম্য তাদের নিয়তি বা ভাগ্য পরিবর্তন করে। সুতরাং আরো ব্যাখ্যা অপ্রয়োজনীয় মনে করছি।

৬. রিপল ইফেক্ট (Ripple Effect)

রিপল ইফেক্ট হলো একটি প্রভাব যা দেখায় যে একটি ছোট কাজ বা ঘটনা কিভাবে বৃহত্তর প্রভাব তৈরি করতে পারে। এটি বোঝায় যে, একটি কাজ করার পর পাওয়া ইতিবাচক ফিডব্যাক একজন ব্যক্তিকে ঐ কাজে আরও উৎসাহিত করে এবং তার নিয়তি গঠনে সাহায্য করে। উদাহরণস্বরূপ, লেখালেখির ক্ষেত্রে, প্রথমে ভুলভাল লেখা শুরু করে একজন লেখক ধীরে ধীরে তার দক্ষতা উন্নত করে এবং প্রশংসা পেয়ে আরও ভালো লিখতে অনুপ্রাণিত হয়। তবে, এই ইফেক্ট সবসময় ইতিবাচক নাও হতে পারে; যেমন, একজন সিরিয়াল কিলার তার কাজের জন্য প্রশংসা পেলে সে তার কাজ চালিয়ে যেতে পারে। এই ইফেক্ট দেখায় যে আমাদের কর্ম এবং তার প্রতিক্রিয়া আমাদের নিয়তি নির্ধারণ করে।

রিপল ইফেক্ট আমাদের বোঝায় যে আমাদের প্রতিটি কাজের প্রতিধ্বনি আমাদের জীবনে এবং অন্যের জীবনে বিস্তৃত হতে পারে, এবং এটি আমাদের নিয়তি গঠনে অবদান রাখে।

- Advertisement -

৭. প্লেসিবো প্রভাব (Placebo Effect)

প্লেসিবো প্রভাব হলো এমন একটি ঘটনা যেখানে একটি অকার্যকর চিকিৎসা বা চিকিৎসা না থাকা সত্ত্বেও রোগীর মধ্যে উন্নতির অনুভূতি সৃষ্টি হয়। এই প্রভাবের পেছনে মূল কারণ হল রোগীর বিশ্বাস এবং প্রত্যাশা। যেমন, ধরুন আপনার জ্বর আছে এবং আপনাকে ‘প্যারাসিটামল’ লেখা একটি ট্যাবলেট দেওয়া হল। আপনি জানেন যে প্যারাসিটামল জ্বর সারাতে সাহায্য করে, তাই আপনি ট্যাবলেটটি খেলেন। কিন্তু আসলে, আপনার মা আপনাকে একটি প্লেসিবো ট্যাবলেট দিয়েছেন যাতে কোনো ওষুধ নেই। তবুও, আপনি অনুভব করতে পারেন যে আপনার জ্বর সেরে গেছে কারণ আপনার পূর্ব বিশ্বাস ছিল যে প্যারাসিটামল খেলে জ্বর সারে।

এই প্রভাব দেখায় যে আমাদের বিশ্বাস এবং প্রত্যাশা আমাদের কর্ম, সিদ্ধান্ত এবং সম্পর্কে প্রভাব ফেলে। যদি আমাদের মন খারাপ থাকে, তাহলে আমরা ভালো কাজ করতে পারি না, এবং সেই সাথে ভালো সিদ্ধান্তও নিতে পারি না। এই ধরনের মানসিক অবস্থা যদি দীর্ঘমেয়াদী হয়, তাহলে তা আমাদের প্রোডাক্টিভিটি হ্রাস করে এবং প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়ার কারণ হতে পারে। ফলাফল হিসেবে, আমাদের দুর্দশা আমাদের নিয়তি তৈরি করে।

৮. পিগম্যালিয়ন প্রভাব (The Pygmalion Effect)

গ্রীক পুরাণে, ‘পিগম্যালিয়ন’ নামের একজন শিল্পী ছিলেন যিনি একটি মূর্তির প্রেমে পড়েন এবং সেই মূর্তিতে জীবন আনার জন্য প্রার্থনা করেন। প্রেমের দেবী অ্যাফ্রোডাইটি তার প্রার্থনা শুনে মূর্তিটিকে জীবন্ত করে দেন। এই গল্প থেকে উদ্ভূত পিগম্যালিয়ন প্রভাব হলো একটি মনোবৈজ্ঞানিক ধারণা যা বলে যে, উচ্চ প্রত্যাশা সাধারণত উচ্চ প্রদর্শনের দিকে পরিচালিত করে। অর্থাৎ, যদি আমরা কারো কাছ থেকে ভালো ফলাফলের প্রত্যাশা করি, তাহলে তারা সাধারণত সেই প্রত্যাশার স্তরে পৌঁছানোর জন্য আরও ভালো করে। অন্যদিকে, কম প্রত্যাশা সাধারণত কম প্রদর্শনের দিকে পরিচালিত করে।

এই প্রভাব মানুষের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি দেখায় যে আমাদের প্রত্যাশা আমাদের কর্ম এবং সময়ের ব্যবহারে প্রভাব ফেলে। সুতরাং, উচ্চ প্রত্যাশা আমাদের প্রোডাক্টিভিটি বাড়ায় এবং আমাদের নিয়তি নির্ধারণে সাহায্য করে।

৯. দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট (The Compound Effect)

এই ইফেক্ট বেশ সোজা। ‘সিদ্ধান্ত’ গ্রহণ করা এবং তার পরিণতি (ভালো বা মন্দ) গ্রহণ করার নামই হচ্ছে দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট। এখানে কোনো কৌশল নেই। কোনো অতিরঞ্জিত বিষয় নেই। কোনো ম্যাজিক বুলেট নেই। দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট সেই নীতির উপর ভিত্তি করে গঠিত, যে নীতি বলে সিদ্ধান্তগুলো আপনার ভাগ্য গঠন করে।

- Advertisement -

ছোট ছোট, প্রতিদিনের সিদ্ধান্তগুলো হয় আপনাকে আপনার কাঙ্খিত জীবনে নিয়ে যাবে, নয়তো ডিফল্ট হিসেবে বিপর্যয়ের দিকে। ড্যারেন হার্ডি, সাকসেস ম্যাগাজিনের প্রকাশক, দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট উপস্থাপন করেছেন।

১০. ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্ট (The Bandwagon Effect)

ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্ট হলো একটি মানসিক প্রবণতা যেখানে ব্যক্তিরা অন্যদের কর্মকাণ্ড বা বিশ্বাসের প্রতি অন্ধ অনুসরণ করে। এটি সাধারণত তখন ঘটে যখন একটি বিশেষ ধারণা বা প্রবণতা জনপ্রিয় হয়ে ওঠে এবং মানুষ ভাবে যে বহু মানুষ যদি একটি বিশেষ কিছু করে, তাহলে তা সঠিক বা প্রয়োজনীয়।

উদাহরণ: যদি একটি শহরে অনেক মানুষ একজন ব্যক্তিকে পেটাচ্ছে এবং আপনি তাদের দেখে তাকে পেটানো শুরু করেন, তাহলে আপনি ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্টের শিকার হয়েছেন। এই প্রবণতার কারণে ভারতে লিঞ্চিং এবং বাংলাদেশে চোর ধরে পিটিয়ে হত্যা করার মতো ঘটনা ঘটেছে এবং ঘটছে। এখানে মূল বিষয় হলো যে, ব্যক্তি কোন অপরাধ করেছে কিনা তা নয়, বরং অধিকাংশ মানুষ কি বিশ্বাস করে তা।

ব্যক্তি যখন তার নিজের জ্ঞানীয় বিচার-বুদ্ধি বাদ দিয়ে ভীড়ের সাথে মিশে যায় এবং ভীড়ের কর্মকাণ্ডকে অনুসরণ করে, তখন তাকে ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্টের শিকার বলা হয়। এই প্রবণতা আমাদের নিয়তি নির্ধারণে প্রভাব ফেলে এবং প্রায়শই অন্যায় কাজে উৎসাহিত করে। বাংলা প্রবাদে আছে, “পাপ তার বাপকেও ছাড়ে না,” যা দেখায় যে অন্যায় কাজের ফল অবশ্যই ভোগ করতে হয়।

প্রবন্ধ লেখা শেষ। টাইপ করতে করতে হাতে ব্যথা অনুভূত হচ্ছে, কিন্তু এটি স্পষ্ট যে আমাদের নিয়তি নির্ধারণে বাটারফ্লাই ইফেক্ট, স্নোবল ইফেক্ট, ডমিনো ইফেক্ট, হ্যালো ইফেক্ট, ম্যাথিউ ইফেক্ট, রিপল ইফেক্ট, প্লেসিবো প্রভাব, পিগম্যালিয়ন প্রভাব, দ্য কম্পাউন্ড ইফেক্ট এবং ব্যান্ডওয়াগন ইফেক্টের মতো অনেক পরোক্ষ এবং প্রত্যক্ষ প্রভাব রয়েছে। আমাদের ইচ্ছা যাই হোক না কেন, নিয়তিতে তা অবশ্যই প্রতিফলিত নাও হতে পারে। আজকের মতো এটুকুই। খোদা হাফেজ।

- Advertisement -
- Advertisement -
- Advertisement -

মেহেদি হাসান (বিকেল)

প্রধান সম্পাদক, অভিযাত্রী

সম্পর্কিত প্রবন্ধ

Leave a Reply

- Advertisement -
Back to top button